গুগলে ডাক পেলেন ঢাকা বি’শ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থী

বিশ্ব’বিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্র’কৌশল (CSE) বিভাগের মোট চারজন শিক্ষা’র্থী এবার গুগলে ডাক পেয়েছেন। এদের মধ্যে শাহেদ শাহরিয়ার এবং তামিম আদ্দারী গুগলে যোগদানের জন্য ইতোমধ্যে আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনের জন্য পাড়ি জমিয়েছেন।

তামিম আদ্দারি কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ হতে মাধ্যমিক ও উচ্চ
মাধ্যমিক পাশ করেছেন এবং শাহেদ শাহরিয়ার রং’পুর জিলা স্কুল হতে মাধ্যমিক এবং রংপুর সরকারি কলেজ হতে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছেন।শাহেদ শাহরিয়ার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজ’লুল হক মুসলিম হলের আবাসিক ছাত্র ছিলেন।

এছাড়াও,তিনি ২০১৭ সালের আইসি’পিসি ওয়ার্ল্ড ফাইনালিস্ট ছিলেন।উল্লেখ্য, তামিম আদ্দারী
গুগলের নিউ ই’য়র্ক অফিসে ইন্টারভিউ দিয়েছিলেন এবং শাহেদ শাহরিয়ার পো’ল্যান্ড অফিসে ইন্টারভিউ দিয়েছিলেন।এই দুইজন ছাড়াও নাহিয়ান আশরাফ রাঈদা এবং শারমীন মাহজাবিন রাখী গুগলে ডাক পেয়েছেন।

তবে করোনা পরি’স্থিতির কারণে এই দুইজন কবে যোগ দিবেন তা এখনো গুগল থেকে জানানো হয়
নি।এদের মধ্যে শাহেদ শাহরিয়ার এবং তামিম আ’দ্দারি দুইজনই কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (CSE) বিভাগের ১৯ তম ব্যাচের শি’ক্ষার্থী।

শারমীন মাহজাবিন রাখী এবং নাহিয়ান আশরাফ রাঈদা একই বিভাগের ২০ এবং ২১ তম ব্যাচের শি’ক্ষার্থী।এদের মধ্যে শারমীন মাহজাবিন রাখী এই বছরের জানুয়ারিতে
সুইজা’রল্যান্ডের জুরিখে ইন্টারভিউ দিয়ে আসেন।

তিনি আমাদেরকে জানান, জুলাইয়ে গুগ’লের মিউনিখ অফিসে তার যোগদানের কথা থাকলেও করোনার কারণে কবে যোগ দিবেন তা নিশ্চিত নয়।

তিনি মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকে যথাক্রমে এ কে হাই স্কু’ল এন্ড কলেজ এবং আইডিয়াল কলেজে পড়াশোনা করেছেন।অপরদিকে
নাহিয়ান আশরাফ রা’ঈদা আমাদেরকে জানিয়েছেন, তিনি গত বছরের জুলাইয়ে সিংগাপুরে ইন্টারভিউ দেন। এই বছরের জানুয়ারিতে গুগলের তাইওয়ানের তাইপেই অফিসে যোগ দেবার কথা থাকলেও করোনার কারণে কবে যোগ দিবেন সেই ব্যাপারে এখনো গু’গল থেকে জানানো হয় নি।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে যোগ
দেবা’র আশা করছেন তিনি। নাহিয়ান আশরাফ রাঈদা হলিক্রস গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ থেকে মাধ্যমি’ক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছেন।নাহিয়ান আশরাফ রাঈদা এবং শারমীন মাহজাবিন রাখীর সাথে আলাপ করে জানা যায় , বেশ কয়েকটি ধা’পে গুগলের রিক্রটিং প্রসেস অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমে ফোনকলের মাধ্যমে প্রার্থীর সাথে
সম্পূ’র্ণ প্রক্রিয়া নিয়া আলোচনা করে গুগল।

এরপর গুগলের কোন ইঞ্জি’নিয়ার ভিডিও কলে ৪৫ মিনিটের একটি ইন্টারভিউ নেয়। এই ধাপ পেরোলে গুগলের কোন এক অফিসে গিয়ে অনসাইট ইন্টারভিউ দিতে হয়। অনসাইটে ৩-৫ টি ৪৫ মিনিটের ইন্টা’রভিউ হয়।সদ্য গ্রাজুয়েট হলে সবগুলোই প্রবলেম সল্ভিং ইন্টারভিউ
নেয়া হয়।

অন্যথায়, একটি সিস্টেম ডিজা’ইন ইন্টারভিউ নেয়া হয়।সবগুলো ধাপে সফল হলে গুগলের কোন টিমের সাথে কাজ করতে ই’চ্ছুক সেই ব্যাপারে জেনে গুগলের সংশ্লিষ্ঠ টিম মনোনীত প্রার্থীর সাথে যোগা’যোগ করে।

আরও সংবাদ

অপরাধ প্রমাণিত হলে সাহেদের মৃত্যুদণ্ডও হতে পারে

করোনা পরীক্ষার ভুয়া সনদসহ বহুমাত্রিক জালিয়াতিতে গ্রেপ্তার রিজেন্ট হাসপাতালের স্বত্বাধিকারী ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম অপরাধ প্রমাণিত হলে তার মৃত্যুদণ্ডও হতে পারে বলে জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

তিনি বলেন, সাহেদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে জাল মুদ্রার একটি মামলা করেছে র‌্যাব। এটি প্রমাণ করতে পারলে মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন বা ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড হতে পারে তার। এছাড়া অনকেগুলো প্রতারনার মামলা রয়েছে। সেখানে দণ্ডবিধির ৪২০ ধারায় সর্বোচ্চ সাত বছরের সাজা হতে পারে সাহেদের।

খুরশিদ আলম খান বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের যে চুক্তি হয়েছে তার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ বিষয়ে অনুসন্ধানের জন্য দুদক টিম গঠন করেছে। চুক্তি অবৈধভাবে হয়ে থাকলে জড়িতদেরকে খোঁজে বের করা হবে। আর এই চুক্তির ফলে সরকারের কোন টাকা ক্ষতি হয়েছে কি না সেটা দেখা হবে। প্রয়োজনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি এবং আরও উর্ধ্বতনদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। আর কোন কিছু উদ্ঘাটন হলে সবার বিরুদ্ধে অপরাধের ধরন অনুযায়ী মামলা হবে।

তিনি আরও বলেন, শাহেদের অবৈধ সম্পদের উৎস সম্পর্কে জানতে পৃথক অনুসন্ধান কমিটি গঠিত হয়েছে। উৎস যদি জ্ঞাত আয় বহির্ভুত হয় বা উৎসের সঙ্গে আয়ের মিল না থাকলে মামলা হবে। সেখানে কোন মানিলন্ডারিং এবং কাউকে ঘুষ দেয়ার প্রমাণ পেলে যাকে দিয়েছে তাকেসহ মামলা হবে।