এবার ভারতের ড্রোনে হামলা করে ভূপাতিত করলো পাকিস্তান

ভারতের একটি ড্রোন (কোয়াডকপ্টার) ভূপাতিত করার দাবি করেছে ভারত। কাশ্মীর অঞ্চলে এই ড্রোনটি গুলি করে ধ্বংস করা হয়। ইয়েনি শাফাক নামের তুর্কি গণমাধ্যমে এই খবরটি প্রকাশিত হয়।

এর আগে রোববার দেশটির সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে ভারতীয় ড্রোনটি ভূপাতিত করার কথা জানায় পাকিস্তান।পাকিস্তানি সেনাবাহিনী হট স্প্রিং সেক্টরে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ভারতীয় একটি কোয়াডকপ্টার ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করে।

তারা এসময় জানায়, কোয়াডকপ্টারটি পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণ রেখার ৮৫০ মিটার অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছিল। সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়, এ বছরে এটি নিয়ে ভারতীয় নবম কোয়াডকপ্টার ভূপাতিত করা হল।

আরও সংবাদ

সীমান্তে সড়ক নির্মাণ দ্রততর করতে নেপালের সেনা নিয়োগ

ভারত-নেপাল সীমান্তে পিথোরাগড় লাগোয়া মহাকালি করিডোর নামে পরিচিত ধরশুলা-টিনকার সড়ক নির্মাণের কাজ দ্রুততর করেছে নেপাল সরকার। নেপালি নাগরিকদের ভারতীয় সড়ক ব্যবহারের উপর নির্ভরতা কমাতে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে সূত্র জানায়।

এই এলাকায় নেপালের বহু মানুষ তাদের গ্রামে পৌঁছার জন্য ভারতীয় সড়ক ব্যবহার করে। ধরশুলা সড়কটি নির্মাণ শেষ হলে নেপালের স্থানীয়দের শুধু ভারত নির্ভরতাই কমবে না নেপালের সশস্ত্র পুলিশও সহজে সীমান্তে টহল দিতে পারবে।

এছাড়া টিংকারের অদূরে এই সড়কের শেষ মাথায় চীন সীমান্তেও সহজে পৌঁছা সম্ভব হবে। এই সড়ক পথে কৈলাস মানসরবরে তীর্থ যাত্রীদের নিয়ে যাওয়া নেপালের ট্যুর অপারেটরদের জন্য সহজ হবে।

সূত্র জানায় ১৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি দ্রুত নির্মাণ করার জন্য কয়েক মাস আগে নেপাল সরকার সেনাবহিনী নিয়োগ করে। গত এক দশকে মাত্র ৪৩ কিলোমিটার নির্মাণ শেষ হয়। পিথোরাগড় জেলার ধরশুলার কর্মকর্তারা জানান নেপাল সেনাবাহিনী অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সড়কটি নির্মাণ করছে। সড়ক নির্মাণের সরঞ্জাম দ্রুত বহন করা জন্য ঘাটিয়াবাজারে হেলিপ্যাড নির্মাণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ভারত ও নেপালের মধ্যে সীমান্ত বিরোধের মধ্যে এই সড়ক নির্মাণের কাজ দ্রুততর হওয়ার খবর পাওয়া গেলো। চলতি মাসের গোড়ার দিকে ভারতের দাবি করা তিনটি এলাকা নিজের দেখিয়ে নেপাল নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশ করেছে।